Sharing is caring!

ছেলে পয়সাওয়ালা এখন তার কাছে যেকোনো মেয়ে গেলেই লোভী হই যাবে।সুইসাইড খেয়ে ফেললো বেচারী তার ভালবাসা উদ্ধারের পথ না দেখে আর তার ভালবাসা টাই দেখা হলো না।আর মেয়েটার বয়সও কেও দেখলো না।

পিচ্চি একটা মেয়ে,এই বয়সে আবেগ টাই থাকে বেশি।মন ও সুইসাইডাল থাকে।এক লাখ টাকার ফ্ল্যাট দেখতে সুন্দর ই হবে।কিন্তু এতে আহামরি লাইফস্টাইল কদ্দুর চ্যাঞ্জ হচ্ছে আর মেয়ে পারসোনালি ছেলে থেকে কি ফাইনান্সিয়াল হেল্প নিয়ে ছিল সেটা ভাবা আমার হিসাববিজ্ঞানী মন।ক্যান বয়ফ্রেন্ড বউ এর মত ব্যবহার করবে আর বউ এর মত দায়িত্ব নেবেনা এভাবে কি খেলা হয় নাকি?

বয়স-আবেগ-ভালবাসা-জীবনযাত্রা (আয়েশী)-অভ্যস্ততা সবকিছু মিলিয়ে সুইসাইড টাই তার বেছে নেয়া শাস্তি ছিল।এতে আর কিছু না হোক জাপানি পর্ন ইন্ডাস্ট্রি তে যেমন ছেলেরে ব্লার করে দেয় তেমনি আমাদের কিছু শক্তিশালী (আপনি পড়ুন চামচা) মিডিয়া ছেলের ছবি ব্লার করে প্রচার করছে।এতে সত্যই আমি বহুত আমোদিত বিনোদিত হয়েছি।এরকম কিছু বিনোদন দেখার সুযোগ পেয়ে ও আমি ধন্য।

আবার আরেকদল এতে মামুনুল হক রে নিয়ে জাস্টিফাই করতে ব্যস্ত।এরাও আরেক বেক্কলের দল।আর কিছু আছে সমাজের কিছু ছিড়ার নাই ক্ষমতা অথচ গোড়ামী কুসংস্কার এগুলা প্রমোট করতে বিন্দাস ব্যস্ত।সুযোগ পাইলে এরাও গফ নিয়ে হজ করতে যায়।লজিক বি লাই,”আমিত আমার গফ নিয়ে অনেক পিওর।আমরা বিয়ে করব।আমি অনেক ধার্মিক।পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি।আমরা যাই করব তাই ইবাদাত।বাকি সব ফাউল।আমি গফ নিয়ে ফ্ল্যাটে থাকা মানে আমরা ইবাদাত করছি।আপনি আবার মাঝখানে অন্য কিছু ভাববেন না”।আরেকদল তো অনেক ভয়ংকর ভাবে ব্রেইনবায়াসড তাদের লজিক,”হুজুররা তো জানে কখন রেইপ করা জায়েজ “।

এত বিনোদনের ভীরে আমরা এটা ভুলে যাই মামুনুল হকের ডকুমেন্ট ছাড়া বিয়ে ইসলামে কদ্দুর গ্রহণযোগ্য আর ইসলামে দেশের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতেও বলা হয়েছে।

সে যাকগে বাজে কথা আমি ভাই সাতে পাঁচে নাই,এতিম মেয়েটারে মেনটরিং করার কেও ছিল না।আমি ভাই মেয়েটার দোষ কম দেখছি।সে এক পা বাড়িয়েছে আর তার ৪২ বছর বয়সী বিবাহিত প্রেমিক পাঁচ পা বাড়িয়েছে।ইম্প্রেস না করলে হুদাই মাইয়া ঘাস খাইতে তো যায় নাই।আর এক হাতে তালি তো বাজে ই না।সুতরাং মামুনুল হকের সময়েই যেহেতু বলে ছিলাম এটা একান্তই কারো পারসোনাল ব্যপার কে কার সাথে কি এফেয়ার করবে।এতে কারো কিছু যায় আসেনা।কিন্তু মেয়েটা যখন সুইসাইড করে ফেলে প্রেশার ফেইছ না করতে পেরে যে লাইফে সে না বুঝেই আবেগে পা রেখে দিয়েছিল তখন তো মোরাল পুলিশিং চলেই আসে।

আমরা ভুলে যাই এই বয়সের আবেগ নিয়ে হাজারো কবি-লেখক-মনোবিজ্ঞানী লিখে গেছেন,গবেষণা করছেন।পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এই বয়সের হরমোনাল চ্যাঞ্জ এর ব্যপার গুলো।ক্যামনে এসব অগ্রাহ্য করেন?এরকম ভুল হাজারো টিনেজ করলেও অনেক ফ্যামিলি আছে সন্তান দের বুঝিয়ে নি আসে।ভুল যা করার করে ফেলে সে শাস্তি হিসেবে সুইসাইড বেছে নিয়েছে।এখন যা আসলেই অপরাধ তা নিয়েই নাহয় কথা হোক।

বাসায় আমরা দুই বোন ঝগড়া করলে আম্মু আমারেই বকা দিত।বলত,”বুইড়া দামড়া হয়ে তুমি ছোটবোনের সাথে ঝগড়া কর।”যদিও বয়সে আহামরি বুড়ো ছিলাম না কিন্তু দোষ টা বুইড়া দামড়া হিসেবে আমার ঘাড়েই বর্তায়।

কারণ দেশীয় আইনে,এফেয়ার অপরাধ নয়।অপরাধ হচ্ছে পিচ্চি মেয়েটাকে সুইসাইডে বাধ্য করা।এটারে জাস্টিফাই করে কাকে বাঁচাচ্ছেন?মোরাল পুলিশিং ঠিক আছে তো?

হাস্যরসের তো কমতি নাই জনগণের মনে।

লিখেছেনঃ খন্দকার বুশরা শামস

https://i0.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2021/04/IMG_20210428_164115.jpg?fit=551%2C310&ssl=1?v=1619606774https://i0.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2021/04/IMG_20210428_164115.jpg?resize=150%2C150&ssl=1?v=1619606774culiveমতামতএকটি প্রেম,তানভীর,বুশরা,মুনিয়াছেলে পয়সাওয়ালা এখন তার কাছে যেকোনো মেয়ে গেলেই লোভী হই যাবে।সুইসাইড খেয়ে ফেললো বেচারী তার ভালবাসা উদ্ধারের পথ না দেখে আর তার ভালবাসা টাই দেখা হলো না।আর মেয়েটার বয়সও কেও দেখলো না। পিচ্চি একটা মেয়ে,এই বয়সে আবেগ টাই থাকে বেশি।মন ও সুইসাইডাল থাকে।এক লাখ টাকার ফ্ল্যাট দেখতে সুন্দর ই হবে।কিন্তু...#1 News portal of Chittagong University

Sharing is caring!