Sharing is caring!

মিথ‍্যে অপবাদমিথ‍্যে অপবাদস্বার্থাণ্বেষীদের মিথ‍্যে অপবাদ- অপমান সহ‍‍্য করার জন‍্য এরপর আর কেউ দেশে ফিরবে?
তারপর আবার বলবেন দেশের মানুষের টাকায় পড়ে বিদেশ গিয়ে টাকি কামাচ্ছে।

যিনি নিউ ইয়র্কের বিদেশী সহ বাংলাদেশীদের সেবা দিয়েছেন। এমন কি বাংলাদেশীদের বাড়ীতে গিয়ে গিয়েও সেবা দিয়েছেন। এতেও ক্ষ‍্যান্ত হন নি তিনি দেশের সেবা করার জন‍্য এগিয়ে এসেছেন। অন‍্যান‍্যদের মতো বিদেশে বসে থাকেন নি।
দেশে আসার আগে তাঁর লেখা পোস্টের কয়েকটি লাইন তুলে ধরছি “দেশ মায়ের সেবা করার সুযোগ সবার হয় না। আমি সৌভাগ্যবান সে সুযোগ পেয়েছি….দেশের সম্মুখ যোদ্ধাদের জন‍্য সুরক্ষা সরঞ্জাম নিয়ে যাচ্ছি বড় যত্ন করে। আলো আসবেই!”

অথচ দেশের সেবা করতে আসা এই লোকটাকেও আমরা ছাড় দেই নি আমাদের স্বার্থ আর জঘন‍্য রাজনীতির হাত থেকে!
নিজের খেয়ে, দেশের মোষ তাড়াতে- এভাবে সাফাই দিতে হবে কেনো তাঁর?

নাহয় বিরোধী দলপন্থী হলেন। বি এন পি,লীগ, জামাত যেকোন একটা দল অনুসরণ করেন আরকি। কিন্তু, যে দলই করুক দেশের জন‍্য নিস্বার্থভাবে কাজ করতে এসেছেন তিনি- এটাই তো মূল কথা।
দল তো করে মানুষ দেশের সেবার জন‍্য। দেশের স্বার্থের আগে তো দল বড় হতে পারে না, ভুল বললাম কি?

অন্তত বিদেশীদের দালালি তো করেন নি।
আর, আপনারা দল করে রাজনীতি করে কি করেছেন?
ত্রাণ চুরি আর সরকারের সমালোচনা ছাড়া???

যদি তিনি খন্দকার মোশতাকের আত্মীয়ও হতেন তার মানে কি তিনি দেশদ্রোহী হবেন নিশ্চিত ?
তার পরিবারে দেশপ্রেমী কেউ থাকতে পারেন না?
আর দেশের সব আওয়ামীলীগ কর্মীরা কি দেশপ্রেমী???

লীগের সব কর্মী কি পারিবারিকসূত্রে লীগ করে?
কেউ দল পরিবর্তন করেন আসেন নি?
আমি এমন অনেককে চিনি, যারা কয়েক বছর আগেও প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে যা তা লিখতেন। এখন দল পরিবর্তন করে সুর বদলে আজকাল ত‍্যালতেলে পোস্ট লিখেন। প্রধানমন্ত্রী এখন তাদের কলিজা, নয়নের মনি।

দুদিন পর অন‍্য সরকার ক্ষমতায় এলে তারা আবার দল পাল্টাবেন না,রঙ বদলে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বলবে না- গ‍্যারেন্টি দিয়ে বলতে পারবেন?
তাদের কি বলবেন?? তাদের নিয়ে কি ব‍্যবস্থা নিচ্ছে।

ভাই রে ভাই, যেখানে দেশের অধিকাংশ ডাক্তারদের ঘর থেকে বের করতে প্রণোদনা-চাকরির ভয় দেখাতে হয়েছে। যেখানে প্রশিক্ষণ আর সুরক্ষা ছাড়াই ডাক্তারদের মরতে পাঠানো হয়েছে- সেখানে বিদেশ ফেরত একজন বিশেষজ্ঞ আসলো তাও সরঞ্জাম নিয়ে!! তাও স্বেচ্ছায়।
করোনায় মরে গেলে আর তার বিদেশ ফেরা হবে না, পরিবারের কি হবে কে জানে? এসব কিছু না ভেবে লোকটা চলে আসলো?
ভাবা যায়?

আসলে কেউ এভাবে দেশের সেবা করতে আসে না তো। তাও আবার এমন করোনা দুর্যোগে? এসব তো কল্পনাও করা যায় না !
এজন‍্যই তেনারা কনফিউজড হয়ে গিয়েছেন।

দেশের প্রধানমন্ত্রী/ মন্ত্রীদের নিয়ে কিছু বললে যেমন জেলে ঢুকানো হয়- তেমনি হলুদ সাংবাদিকতার জন‍্য, মিথ‍্যে তথ‍্য প্রচার করে জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন‍্যও কঠিন শাস্তি প্রবর্তন করা প্রয়োজন।
তাহলেই দেখবেন, হলুদ সাংবাদিকতা হলদে পটির সাথে বেরিয়ে যাবে।
সাংবাদিক হবে নিরপেক্ষ। সঠিক তথ‍্য প্রদানকারী। এ পেশাটা খুবই মহত্বপূর্ণ একটি পেশা। পেশার সম্মান রক্ষা করতে না পারলে পেশায় থাকার প্রয়োজনও নেই।

অবশ‍্য অধিকাংশ ঘুষখোর, দুর্নীতিবাজ আর স্বার্থণ্বেষীদের এ দেশে, দেশ মায়ের সেবাটা করাটাও একটা প্রহসন।

মা প্রায়ই একটা কথা বলে, শুয়োরের পেটে নাকি
ঘি হজম হয় না।
কথাটা এখন উদাহরণসহ এদেশের মানুষ দেখছে।
শেষ পর্যন্ত কি হবে, সেটাই এখন প্রশ্ন!

-প্রকৃতি সাহা
শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সটিটিউট

Sharing is caring!

culiveমজার তথ্যমতামতসম্পাদকীয়মিথ‍্যে অপবাদস্বার্থাণ্বেষীদের মিথ‍্যে অপবাদ- অপমান সহ‍‍্য করার জন‍্য এরপর আর কেউ দেশে ফিরবে? তারপর আবার বলবেন দেশের মানুষের টাকায় পড়ে বিদেশ গিয়ে টাকি কামাচ্ছে। যিনি নিউ ইয়র্কের বিদেশী সহ বাংলাদেশীদের সেবা দিয়েছেন। এমন কি বাংলাদেশীদের বাড়ীতে গিয়ে গিয়েও সেবা দিয়েছেন। এতেও ক্ষ‍্যান্ত হন নি তিনি দেশের সেবা করার জন‍্য এগিয়ে এসেছেন। অন‍্যান‍্যদের...#1 News portal of Chittagong University