Sharing is caring!

বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরীর প্রশাসন কিছু ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যে সিদ্ধান্তগুলোর কারণে প্রশাসনের শত্রু বেড়েছে। প্রভাবশালীমহলের কাছে এ প্রশাসনের জনপ্রিয়তা কমেছে। তবে উপকৃত হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়।

 

গত চার বছরে বিশ্ববিদ্যালয় সীমানা নির্ধারণ করে সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ, বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কর্মচারী নিয়োগ, ই-টেন্ডারের মাধ্যমে অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের ঠিকাদার নিয়োগ হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে। ফলে অতীতের মত প্রভাবশালী মহল নিয়োগ বাণিজ্য, টেন্ডারবাজি করতে পারেনি। যুগের পর যুগ দখলে থাকা বিশ্ববিদ্যালয় শত শত একর জমি দখলে ছিল, সেগুলোও প্রভাবশালীদের হাত থেকে রক্ষা করেছে প্রশাসন।

 

সাড়ে ছয় বছরের সেশনজটকে শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনা এ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অন্যতম অর্জন বলেও মনে করছে সংশ্লিষ্টরা।

 

এ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সবচেয়ে বড় অর্জনের বিষয় হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি স্থাপন ও ‘জয় বাংলা’ ভাস্কর্য নির্মাণকে। এছাড়াও বঙ্গবন্ধু পরিবারের প্রায় প্রতিটি সদস্যের নামে এ প্রশাসন বিশ্ববিদ্যালয়জুড়ে স্থাপন করেছে হল, জিমনেসিয়াম, পার্কসহ নানা স্থাপনা।

 

যে বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৫ সাল পর্যন্ত মৌলবাদি অপশক্তির দৃঢ় অবস্থানের ফলে বঙ্গবন্ধুর নামও মুখে আনা যেত না সে বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন চারিদিকে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে দৃশ্যমানভাবে।

 

সোর্সঃ বাংলা নিউজ ২৪

Sharing is caring!

demo demoUncategorizedবিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরীর প্রশাসন কিছু ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যে সিদ্ধান্তগুলোর কারণে প্রশাসনের শত্রু বেড়েছে। প্রভাবশালীমহলের কাছে এ প্রশাসনের জনপ্রিয়তা কমেছে। তবে উপকৃত হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়।   গত চার বছরে বিশ্ববিদ্যালয় সীমানা নির্ধারণ করে সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ, বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কর্মচারী নিয়োগ, ই-টেন্ডারের মাধ্যমে অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের ঠিকাদার নিয়োগ হয়েছে...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University