১৪ বছর বয়সে ব্যাংকের মালিক

ছেলেটির নাম হোসে, দেশ পেরু । সাত বছর বইয়সে সে একটি ব্যাংক খুলে বসে।হোসের এই ব্যাংকটির নাম “বার্টসেলেনা চিলড্রেন ব্যাংক’ । সে খেয়াল করে দেখে,তার সকল বন্ধুরাই প্রচুর টাকা উড়ায়। কিন্তু, টাকা জমায় না। অর্থ সম্পদ শুধু খরচ করা উচিত নয়, জমানোও উচিত। কারণ, অর্থ খরচ করা যত সহজ, অর্থ উপার্জন ততটা নয়। তাই অর্থ উপার্জনের গুরুত্ব উপলব্ধি করেই হোসে একটি ব্যাংক খোলার চিন্তা নেয়।
অন্যসব ব্যাংকের চেয়ে হোসের আইডিয়া ছিল ভিন্ন। তার চিন্তা ছিল, কিভাবে এই বয়সের ছেলেমেয়েরা অর্থ জেনারেট করতে পারে তাদের বাবামায়ের সাহায্য ছাড়াই। অনেক ভেবে সে দেখলো, রিসাইক্লিংয়ের মাধ্যমে এটি সম্ভব। বর্তমান বিশ্বে ভয়াবহ একটি গ্লোবাল সমস্যা হলো, পরিবেশ দূষণ। মানুষই পৃথিবীকে বসবাসের অনুপযোগী করে ফেলছে ময়লা ফেলে। বর্জ্য তৈরি করে। তাই হোসের ব্যাংকিং আইডিয়াটি দাঁড়াল এমন, এখানে একাউন্ট খুলতে হলে নির্দিষ্ট পরিমাণ বর্জ্য জমা দিতে হবে। এবং প্রতি মাসে নির্দিষ্ট পরিমাণ বর্জ্য ডিপোজিট হিসেবে দেয়ার প্রতিজ্ঞা দিতে হবে।

এই বর্জ্যগুলোকে হোসে স্থানীয় এক কোম্পানি দ্বারা রিসাইকেল করে পুনরায় ব্যবহার উপযোগী পন্য হিসেবে তৈরি করবে। এই প্রজেক্ট থেকে প্রাপ্ত অর্থ যোগ হবে ব্যাংকটির গ্রাহকদের একাউন্টে। এই অর্থ তখনই তোলা যাবে যখন গ্রাহক তার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ পরিমাণ বর্জ্য জমা দিবে। এই অর্থ গ্রাহকই উত্তোলন করতে পারবে।

তার এই আইডিয়া অল্পদিনে বেশ আলোচিত হয়। পেরুর এই মেইনস্ট্রিম ব্যাংক হোসেকে একসাথে কাজ করার অফার দেয়। কিন্তু, হোসে রাজি হয়না । এখন তার বয়স ১৪ বছর, এখন বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা কাজ করে হোসের এই ব্যাংকে। এবং সবাই বয়সে তার বড়। সে সর্বকনিষ্ঠ, কিন্তু সে এই বয়সেই অসাধারণ দূরদর্শী। বেশ অনেকগুলো এওয়ার্ড পেয়েছে ইতিমধ্যে। জলবায়ু এবং উদ্যোক্তা বিষয়ক এইসব পুরষ্কার তার এই ব্যাংকের চলার পথে সহায়ক হিসেবে কাজ করবে নিশ্চয়ই।

তবে, সবচেয়ে বড় অর্জন তো আসলে সাহস এবং পৃথিবীতে নিজের পদচিহ্ন রেখে যাওয়ার এই চেষ্টা।

culiveউদ্দীপনাক্যারিয়ার১৪ বছর,ব্যাংকের মালিকছেলেটির নাম হোসে, দেশ পেরু । সাত বছর বইয়সে সে একটি ব্যাংক খুলে বসে।হোসের এই ব্যাংকটির নাম “বার্টসেলেনা চিলড্রেন ব্যাংক' । সে খেয়াল করে দেখে,তার সকল বন্ধুরাই প্রচুর টাকা উড়ায়। কিন্তু, টাকা জমায় না। অর্থ সম্পদ শুধু খরচ করা উচিত নয়, জমানোও উচিত। কারণ, অর্থ খরচ করা যত সহজ,...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University