subornoহায়রে চবি, তুই এত ফকির হতে পারলি!!!

চবির সুবর্ণ জয়ন্তী আর এডমিশন টেস্ট নিয়ে প্রক্টর স্যারের অফিসে গত রোববার আমার প্রাণপ্রিয় সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে আমিও প্রতিনিধিত্ব করেছি। আমরা নবীন ভর্তিচছু বন্ধুদের নির্বিগ্নে এক্সাম দেয়ার পরিবেশ সৃষ্টি, এডমিশন টেস্টের সময় মার্কেট টু ক্যাম্পাস ২০ টাকার ভাড়া ৫০টাকা নেয়ার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক সহায়তা আর সুবর্ণ জয়ন্তীতে বর্তমান স্টুডেন্টদের ফি বাতিল কিংবা কমিয়ে ২০০টাকা করার জোর দাবি জানিয়ে স্মারকলিপি দিয়েছি। প্রক্টর মহোদয় আমাদের দাবি কর্তৃপক্ষকে দ্রুত অবহিত করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। পরদিন বিকালে বর্তমান স্টুডেন্টদের ফি বাতিলের নিউজ দেখে খুব খুশি হলাম কিন্তু ভিতরে যা দেখলাম তা খুবই হতাশাব্যঞ্জক, আমাদের নাকি ফ্রি ঢুকতে দিবে, বাট স্যুভনির,খাবার, গিফট কিছুই দিবে না!!!

বর্তমান স্টুডেন্টদেরকে এ কেমন অপমান! এ কেমন তাদের রুচি! এ কেমন তাদের মনমানসিকতা! আইনষ্টাইন বলেছিলেন, “তোমরা ডাক্তারি পড়লে সর্বোচচ একটি মেডিসিন আবিষ্কার করবে,ইঞ্জিনিয়ারিং পড়লে সর্বোচচ একটি যন্ত্র আবিষ্কার করবে কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়লে একটা বিশাল জগত পাবে।” এই বিশাল জগতের দায়িত্ববানরা এত অবিশাল মনের পরিচয় দিবে তা ভাবতে অবাক লাগে! আরো অবাক লাগে কর্তৃপক্ষ যখন স্পন্সর খুঁজতেও ফকিরগিরী করে! মেনে নিলাম, চবি ফকির। এরপরও বর্তমান স্টুডেন্টদের এভাবে অপমানিত না করে অন্তত চাকসুতে ১৬টাকার মোরগ পোলাও তো খাওয়াইতে পারতো। কর্তৃপক্ষ অফার করলে আমি আমার এক মাসের টিউশনের টাকা দিয়ে সাবেকদের একটি করে “গরম গরম পেঁয়াজু/ললিপপ/চকোচকো” খাওয়াতে প্রস্তুত আছি আর এও বলে রাখলাম, চবি গণিত বিভাগের পোলাপাইনের এক মাসের টিউশনের টাকা দিয়ে সাবেকদের এক বেলা বিরানি খাওয়ানো ব্যাপার না। মাইন্ড ইট!!!

 

–লেখকঃ Abu Bakar Siddiki

culiveইন্টারভিউইভেন্টএকাডেমিকপলিটিক্সমতামতসুবর্ণ জয়ন্তী  হায়রে চবি, তুই এত ফকির হতে পারলি!!! চবির সুবর্ণ জয়ন্তী আর এডমিশন টেস্ট নিয়ে প্রক্টর স্যারের অফিসে গত রোববার আমার প্রাণপ্রিয় সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সাথে আমিও প্রতিনিধিত্ব করেছি। আমরা নবীন ভর্তিচছু বন্ধুদের নির্বিগ্নে এক্সাম দেয়ার পরিবেশ সৃষ্টি, এডমিশন টেস্টের সময় মার্কেট টু ক্যাম্পাস ২০ টাকার ভাড়া ৫০টাকা নেয়ার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক সহায়তা...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University