ভারতের সর্বোচ্চ আদালত সমকামিতাকে বৈধ ঘোষণা দেওয়ার পর এই দেশের তথাকথিত প্রগতিশীল সমাজের একটি অংশের মধ্যে রীতিমত চাপা খুশি বিরাজ করতেছে।তাদের মতে সমকামিতা মানবাধিকার,যৌন অধিকার।বাস্তবে সমাজের জন্য সমকামিতা রোগ ছাড়া কিছুই না।যেই রোগ চিকিৎসা না করে সমাজের মধ্যে ছড়িয়ে দিলে সমাজেরই ক্ষতি। সমকামিতাকে বৈধতা দিলে সমকামিতা সমাজে ধীরেধীরে ছড়িয়ে যাবে যা খুবই স্বাভাবিক বিষয়।
চিন্তা করুণ একজন ধর্ষকের মত একজন সমকামি ও আপনাকে আক্রমণ করতে পারে।আপনি নিজ লিঙ্গের মানুষদের কাজ থেকেও অনিরাপদ,কি রকম পরিস্থিতি চিন্তা করুন।অনেকেই যুক্তি দেয় অনেক সভ্য রাষ্ট্রে সমকামিতা বৈধ।
সত্যি কথা হচ্ছে যৌনতার ক্ষেত্রে অনেক সভ্য রাষ্ট্র পশুদের পর্যায়ে চলে গেছে।পশ্চিমা বিশ্বে ফ্রি-নিপল আন্দোলন হয়।তাদের পারিবারিক কাঠামো খুবই ভঙ্গুর।প্রকৃতি নিয়ম পছন্দ করে,প্রকৃতি নারী-পুরুষ আলাদা আলাদা লিঙ্গ সৃষ্টি করেছে আমাদের তথা মানবজাতির কল্যাণের জন্য।প্রকৃতির নিয়ম লঙ্ঘন মানবজাতির অতীতে কখনো ভালো হয়নি, ভবিষ্যতেও হবেনা। সুশীল সমাজের যারা সমকামিতাকে মানবাধিকার বলে থাকেন তাদের উচিৎ অন্তত আমাদের এই দেশে বৈধ করার চেষ্টা না করে রোগ হিসেবে চিহ্নিত করে এই রোগের চিকিৎসার উপায় বের করা।

https://i0.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2018/09/সমকামিতা.jpg?fit=300%2C168https://i2.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2018/09/সমকামিতা.jpg?resize=150%2C150culiveবিনোদনশিক্ষাসমকামিতাভারতের সর্বোচ্চ আদালত সমকামিতাকে বৈধ ঘোষণা দেওয়ার পর এই দেশের তথাকথিত প্রগতিশীল সমাজের একটি অংশের মধ্যে রীতিমত চাপা খুশি বিরাজ করতেছে।তাদের মতে সমকামিতা মানবাধিকার,যৌন অধিকার।বাস্তবে সমাজের জন্য সমকামিতা রোগ ছাড়া কিছুই না।যেই রোগ চিকিৎসা না করে সমাজের মধ্যে ছড়িয়ে দিলে সমাজেরই ক্ষতি। সমকামিতাকে বৈধতা দিলে সমকামিতা সমাজে ধীরেধীরে...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University