আমি পুরুষ!!
হ্যাঁ!আমি স্বামী,পতি!!বিধাতা আমায় স্বর্গের প্রতীয়মান করে পাঠিয়েছে।কেবল আমার মাঝেই গুটি কয়েক পত্নীর স্বর্গ বিরাজমান।অর্থাৎ আমি =কয়েকজন পত্নী।আমি শ্রেষ্ঠের মধ্যে শ্রেষ্ঠ,উত্তমের মধ্যেও অধিক উত্তম।পত্নী কয়েকটা মরবে সমস্যা নাই।একটা কলঙ্কিনী মরবেতো দুই টা নিকা করব।একটা/দুইটা কলঙ্কিনী মরলে কি হয়েছে?আমাকেতো আর মরতে হচ্ছেনা,তাই নয়কি?আরো কয়েককটা রুপবতী আমার জন্য বরাদ্দ।ডজনখানেক না হলে কি হবে নাকি?শুধু পার্থক্যটা হবে তখনই যখন আমি মরব তখন নিকৃষ্ট কলঙ্কিনীকে আমার সাথে জীবিত অবস্থায় চিতায় শুয়িয়ে দিতে হবে।অর্থাৎ আমি মৃত অবস্থায়ও জীবিত কলঙ্কিনীকে চিতায় ভক্ষন করিতে করিতে স্বর্গে যাব। আহা! আহা!!কি মধু! কি অমৃত।!!
এটাই ছিল ধর্ম!!এই ছিল পুরুষ জাতি!!তাই বলে অন্য ধর্মের পুরুষরা যে একবারে সাধু এটা ভাবার বিন্দুমাত্র কারন নেই। কষ্ট হচ্ছে আপনার?একটু খেয়াল করুন,প্লিজ। মনে করতে পারবেনতো।কারন,পূর্বপুরুষের রক্তের ধারাতো আপনার শরীরেও বহমান।”নারী”নামক মহান জাতটাকে অসহায় ও ভোগ্য পন্যে পরিনত করা হয়েছিল। ধারনাটা ছিল এমন-“ধর্ম মানেই পুরুষ,ধর্ম মানেই উঁচু জাত।”
মাদ্রির কথা মনে আছে আপনাদের??
মহা ভারতের হস্তিনাপুরের সুর বংশীয় রাজা পান্ডুর ২য় স্ত্রী ছিলেন মাদ্রি।মনীর অভিশাপ ছিল মৈথনি প্রবৃত্ত হলেই(মাদ্রির সাথে মিলন) পান্ডুর মৃত্যু ঘটবে।কিন্তু কোন এক নির্জনে পান্ডু মাদ্রিকে দেখে কামাসক্ত হন।মাদ্রি বারন করা সত্বেও পান্ডু তার সাথে মিলিত হন এবং মনীর অভিশাপে মৃত্যু ঘটে পান্ডুর।স্বামীর মৃত্যুর জন্য মাদ্রী নিজেকে দোষী মনে করে স্বেচ্ছায় স্বামীর সাথে সহমরনে যান।কিন্ত পান্ডুর ১ম স্ত্রী কুন্তি কিন্তু সহমরনে যায়নি।মাদ্রীর সহমরন হয়েছিল স্বেচ্ছায়,জোর করে অথবা কারও ইচ্ছায় নয়।ছোট্ট একটা ভুল ব্যাখ্যাকে কেন্দ্র করে শুরু হয়েছিল সতীদাহ প্রথা।কি দোষ ছিল অসহায় নারীগুলোর??!!এমনকি ৮/৯ বছরের সদ্য বিবাহিতা ছোট ছোট মেয়েগুলোর?যাদেরকে জোরপূর্বক নিক্ষেপ করা হয়েছিল চিতার শিখাকুন্ডে।
পূর্ব থেকে শুরু হয়ে বর্তমান পর্যন্ত নানা রকম জঘন্য,বর্বর কুসংস্কার এবং অন্ধ বিশ্বাসই যুগে যুগে ধর্ম নামক মোড়কে ঢাকা বস্তুটার প্রতি মানুষের ঘৃনা দিনদিন ব্যাপ্তি ঘটিয়ে চলেছে।এখনো সমাজে নানা ধর্মে নানা অন্ধকার বিশ্বাস ও কুসংস্কার ধ্বংস করে দিচ্ছে ধর্মের প্রকৃত বাণীকে।আর যুগে যুগে এর পিছনে ছিল,আছে,থাকবে ধর্মকে কেন্দ্র করে ফায়দা লুটে নেওয়া কতগুলো কান্ড-জ্ঞানহীনদের দল।এদের জন্যই আজ সারা বিশ্বে অপর ধর্মের মানুষগুলোকে আর মানুষ বলে মনে হচ্ছেনা।যেমনটা প্রত্যেকটা ধর্মের গোড়াপত্তনে শোনা যায়নি।এসব জ্ঞানহীনদের জন্যই সারা বিশ্বে আজ কুসংস্কারমুক্ত ধর্মের বড়ই অভাব!!
💜কাউছার মোল্লা।💜

https://i2.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2018/05/পুরুষধর্ম.jpg?fit=280%2C291https://i2.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2018/05/পুরুষধর্ম.jpg?resize=150%2C150culiveধর্মধর্ম,পুরুষআমি পুরুষ!! হ্যাঁ!আমি স্বামী,পতি!!বিধাতা আমায় স্বর্গের প্রতীয়মান করে পাঠিয়েছে।কেবল আমার মাঝেই গুটি কয়েক পত্নীর স্বর্গ বিরাজমান।অর্থাৎ আমি =কয়েকজন পত্নী।আমি শ্রেষ্ঠের মধ্যে শ্রেষ্ঠ,উত্তমের মধ্যেও অধিক উত্তম।পত্নী কয়েকটা মরবে সমস্যা নাই।একটা কলঙ্কিনী মরবেতো দুই টা নিকা করব।একটা/দুইটা কলঙ্কিনী মরলে কি হয়েছে?আমাকেতো আর মরতে হচ্ছেনা,তাই নয়কি?আরো কয়েককটা রুপবতী আমার জন্য বরাদ্দ।ডজনখানেক না হলে...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University