বরাবর,
সাইফুর রহমান সোহাগ ভাই
সভাপতি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ

শুরুতেই সালাম নিবেন। আমি আজ কিছু হৃদয়স্পর্শী চরম সত্য কথা বলতে চাই, যদিও গুছিয়ে বলতে পারবো না জানি।
বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নাম এদেশের ঐতিহ্য, সংস্কৃতির সাথে ধ্রুব নক্ষত্রের ন্যায় মিশে আছে। ছাত্রলীগের ইতিহাস ‘৫২ থেকে ৭১’ এর রক্তঝরা বিরোচিত ইতিহাস। ছাত্রলীগের ইতিহাস এদেশের তরুণ প্রজন্মের তথা ছাত্রজনতার গর্বের ইতিহাস। যুগে যুগে সকল আন্দোলন সংগ্রামে ছাত্রলীগ পাশে ছিল, পাশে
পেয়েছেও।
প্রিয় শ্রদ্ধাভাজন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের অন্যতম একটা আর্টিকেল হচ্ছে সাধারণ ছাত্রদের সকল সমস্যায় পাশে দাড়ানো। আমরা আমাদের স্লোগানে প্রায়ই বলি ছাত্রলীগ সাধারণ ছাত্রদের কল্যাণে সদা প্রস্তুত। ছাত্রলীগের সে স্লোগানকে বাস্তবায়িত করার সময় তো এখনই ভাই। ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের পবিত্রতার সাথে সংশ্লিষ্ট এটি। হাজার হাজার বঞ্চিত বেকারের কান্নার শব্দ কি আপনাদের কাছে পৌছায় না? জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান নিজের জীবনকে উৎসর্গ করে গিয়েছেন যে দেশের বৈষম্য কে দূর করতে, স্বাধীনতার ৪৭ বছর সে দেশে ৫৬% কোটা থাকা কি বৈষম্য নয়? হাজার হাজার মেধাবী জীবিকা-যুদ্ধে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়েও যখন কোটা’র কাছে হেরে হেরে ক্লান্ত তখন কি তার প্রতি রাষ্ট্রের কোন দায় নেই? এমন শত শত মেধাবী আছে যারা পুরো একটা পরিবারের ভরসা, এই ভাই/বোনটি হারতে হারতে চাকরীর বয়সসীমার শেষ প্রান্তে এসে যখন দাড়ায় তখন তার ও তার পরিবারের অবস্থাটা সহজের অনুমেয়। শেষবারেও যখন বৈষম্যের কাছে হার মেনে চাকুরীহীন বেকারের তকমাটা তার কাঁধে ঝুলে, তখন তার আশার কি-ই-বা থাকে? শত হতাশার যন্ত্রণা নিয়ে যখন ভাইটি/বোনটি আত্মহননের পথ বেছে নেয়, তখন এর দায় কে নিবে?
প্রিয় ভাই, আপনি জানেন, দেশের মাত্র ২-৩% মানুষের জন্য ৫৬% কোটা চালু আছে! বাকি ৯৭-৯৮% সাধারণ ছাত্র জনতার জন্য ৪৪%! এটা কি বৈষম্য নয়? এটা কি সাধারণ ছাত্রদের সমস্যা নয়? আমি মনে কি এ “কোটা সমস্যা” এ যাবৎকালে ছাত্রদের বৃহৎ সমস্যা। প্রিয়ভাই, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এখন সাধারাণ ছাত্রদের আশা-ভরসার জায়গা। বাংলাদেশ ছাত্রলীগই পারে ছাত্রদের এ এহেন সমস্যার সমাধান করে ইতিহাসের পাতায় আবারো সংযোজন করতে। আর সেই প্রিয় সংগঠন ছাত্রলীগের কর্ণধার আপনি এবং আপনার সহযোদ্ধা এস এম জাকির হোসাইন ভাই। আপনারা আগেও ছিলেন, এখনো সাধারণ ছাত্রদের পাশে থাকবেন বলে অটল বিশ্বাস। আমি সাধারণ ছাত্রজনতার একজন হয়ে আপনার সদয় সহানুভূতি কামনা করছি।
হাজার বছর নক্ষত্রের মত অম্লান, অক্ষয় থাকুক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু।

ইতি –
বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ক্ষুদ্রতম একজন কর্মী।

সংগৃহীত

https://i0.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2018/03/সভাপতি-বাংলাদেশ-ছাত্রলীগ.jpg?fit=600%2C400https://i1.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2018/03/সভাপতি-বাংলাদেশ-ছাত্রলীগ.jpg?resize=150%2C150culiveক্যাম্পাসতরুণ স্টাইলবাংলাদেশ ছাত্রলীগ,সভাপতিবরাবর, সাইফুর রহমান সোহাগ ভাই সভাপতি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ শুরুতেই সালাম নিবেন। আমি আজ কিছু হৃদয়স্পর্শী চরম সত্য কথা বলতে চাই, যদিও গুছিয়ে বলতে পারবো না জানি। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নাম এদেশের ঐতিহ্য, সংস্কৃতির সাথে ধ্রুব...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University