বাংলাদেশ ব্যাংকের এডি প্রস্তুতি by Yousuf Bin Ali, DD,Bangladesh Bank, MBA-IBA(DU).

জীবনের প্রথম আবেদন-ভাবলাম যদি এডমিট কার্ড পাই পরীক্ষা দিব, সদ্য বিবিএ পাশ করা আমি তখনও জানতাম না বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রশ্নের ধরণ কেমন, একটা বই কিনলাম `Key To Bank Job’ বিগত বছরের প্রশ্নগুলো দেখার জন্য-সত্যি কথা বলতে কি মনের মধ্যে কেমন একটা ভাল লাগা কাজ করতে শুরু করল, বই খুলে প্রশ্নপত্রগুলো সমাধান করতে গিয়ে দেখলাম অনেক কিছুই আমি পারি কারণ আইবিএর প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছিলাম অনেক আগে থেকেই, কিন্তু চাকুরীর পরীক্ষার ধারণা না থাকায় ভাবলাম বাংলাদেশ ব্যাংকে টিকতে হলে তো অনেক মার্কস পেতে হবে, হাজার হাজার প্রতিযোগি-আমি কিভাবে পারব! আমি তো কেবল শুরু করেছি-সত্যিই মানুষ অন্যের সামর্থ সম্পর্কে ধারণা রাখলেও নিজের সম্পর্কে কমই রাখে-এজন্যই হয়ত সবার নিজের কাছে মনে হয়-আমি কি পারব!

► প্রস্তুতি: প্রথমেই-কয়েক বছরের প্রশ্ন নিয়ে একটু গবেষণা করলাম দেখলাম-বাংলায় মোটামুটি ব্যাকরণের ০৯-১০ টি টপিক, উচ্চ মাধ্যমিক বাংলা বইয়ের কবিতা (যেমন-কবর, সাত সাগরের মাঝি, প্রবন্ধ-যৌবনের গান প্রভৃতি)এবং কবি সাহিত্যিকদের জন্ম-মৃত্যু, উল্লেখযোগ্য রচনা প্রভৃতি পরলেই হবে, তারপর সে অনুযায়ী আগালাম ‘বাংলাভাষার ব্যকরণ’ থেকে ব্যকরণ অংশের উপর বিশেষত-শব্দ, ধ্বনি,সমাস, কারক, উপসর্গ-অনুসর্গ, এককথায় প্রকাশ প্রভৃতি। . এর পর ইংরেজী, দেখলাম ভোকাবিউলারিতে স্ট্রং হলে ০৫-০৭ এমনিতেই পাওয়া যায়-তাই ব্যারন’স স্যাট থেকে বাংলায় লিখে লিখে ওয়ার্ড পড়া শুরু করলাম পাশাপাশি ব্যাংকের বিগত বছরের প্রশ্ন থেকেও অজানা শব্দগুলো তুলতে রাখলাম, সেন্টেস কারেকশন আরে সেন্টেস কমপ্লিশন, এ্যানালজি, ওয়ান ওয়ার্ড সাবস্টিটিউশন,গ্রামার রুলস পড়ার জন্য জি আরই বিগবুক, ক্লিফস এর টোফেল আর অনলাইনে গুগলের হেল্প নিলাম। আমি গুরুত্বপূর্ণ জিনিসগুলো আমার মত করে আলাদা খাতায় নোট করতাম কখনও বা সাংকেতিক চিহ্ন দিয়ে রাখতাম।

►ম্যাথের জন্য ১১-১২ টা টপিক সিলেক্ট করলাম- Percentage, profit & loss, partnership, work and time, Equation, set theory, Permutation- combination, speed and distance, boats & stream, inequality, fraction, Probability, Geometry etc. এজন্য বিগত বছরের প্রশ্ন পড়তে রইলাম এবং সাইফুর্স ম্যাথ বইটার হেল্প নিলাম এমনকি ক্লাশ-৭ থেকে ১০ এর ম্যাথ বইয়েরx হেল্প নিলাম বিশেষত জ্যামিতির জন্য ভালই উপকার পেলাম। . সাধারণ জ্ঞানে আমার অবস্থা খুব ভাল ছিল না, তারপরও প্রশ্ন গবেষণায় দেখলাম-সাধরণত খেলাধুলা, অর্থনীতি, ব্যাংকের গভর্নর, বাণিজ্যিক ও কেন্দ্রীয় ব্যাংকের টার্মস, কাজ, বাজেট, সেতু, নোবেল পুরস্কার, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুদ্রা, ও চলমান ঘটনা থেকে বেশি প্রশ্ন আসে ওভাবে আগানোর জন্য মাসিক Current World & Current Affairs এর পাশাপাশি আজকের বিশ্ব বইটাও পড়লাম এবং পত্রিকা ও টিভি খবর দেখার ট্রাই করলাম। আর কম্পিউটার অংশে ভাল করার জন্য বিগত বছরের প্রশ্নের পাশাপাশি গুগলের সাহায্য নিলাম-যেমন ধরুন প্রশ্নে এসেছিল নিচের কোনটি ফ্রি সফটওয়্যার? যে পাঁচটি অপশন ছিল প্রত্যেকটি সম্পর্কে সার্চ দিয়ে বিশদ ধারণা নিতাম। এভাবে চলতে লাগল মাস দুয়েক, পরিবর্তন উপলব্ধি করতে লাগলাম, একটু কনফিডেন্সও বাড়ল, কখনই কোন সাবজেক্ট নিয়ে একসাথে ৪৫ মিনিটের বেশি সময় দিতাম না।
► পরীক্ষার ৫-৬দিন আগে এ্যাডমিট কার্ড হাতে পেলাম মনে হচ্ছিল অনেক বড় কিছু পেলাম, খুশিতে কয়েক সেট ফটোকপি করলাম যদি হারিয়ে যায়! দেখলাম আমার সিট পড়েছে সরকারী তিতুমীর কলেজে, পারতপক্ষে অন্য সব কাজ বাদ দিলাম, দিন রাত স্বপ্ন বোনা, নতুন দিনের।

►পরীক্ষার দিন: ঠিক সময়ে হলে উপস্থিত হলাম, লোকারণ্য মনে হল আমার কি হবে! প্রথমে এমসিকিউ বেশ কঠিন মনে আছে ৬০-৬২ এর বেশি উত্তর দিলাম না ভয়ে।(যদিও ঐ বার মাত্র ৪২ এ সিলেক্ট করা হয়েছিল), আমি কত পেয়েছিরাম সেটা জানার সুযোগ হয় নি কারণ এমসিকিউ এর মার্কস যোগ হয়না) . রিটেনে প্রথমেই ট্রান্সলেশন দিয়ে শুরু করলাম, তারপর ম্যাথ তারপর ইংরেজী প্রবন্ধ সব শেষে প্যাসেজ

►হল থেকে নেমে মনে হল আরেকটু ভাল হলে হয়ত টিকতাম কিন্তু পরক্ষণেই ভাবলাম সবই তো দিলাম আরেকটু ভাল কিভাবে হবে! তারপরও মন মানে না মনে হয় ইশশ যদি আরেকটু ভাল হত!! ইতোমধ্যে আমাদের এলাকার একজন স্যার যিনি বাংলাদেশ ব্যাংকে জব করেন তার ফোন নম্বর যোগার করে আমার কোন চান্স আছে কি-না তা দেখতে বললাম, উনি প্রায় ২০ দিন পরে শুধু জানালেন তোমকে ভাইভায় ডাকবে। আনন্দে আমার মনটা ভরে গেল।

►ভাইভা প্রস্তুতি: বাংলাদেশ এবং দেশের অর্থনীতি, শিক্ষা, দারিদ্র, বানিজ্য, ব্যাকিং সিস্টেম প্রভৃতি সম্পর্কে অনেক ধারণা নিলাম, কিন্তু ভাইভা বোর্ডে আমাকে এসব কিছুই জিজ্ঞেস করলেন না, জানতে চাইলেন আমর প্রথম সেমিস্টারে যেসব বই পড়েছি সেসব বই থেকে প্রশ্ন স্বাভাবিক ভাবেই আমি অনেককিছু স্মরণ করতে পারলাম না, তারা বলল তোমার এ্যাকাডেমিক রেজাল্ট অনেক ভাল তোমার আরও ক্লিয়ারলি পরার উচিত। আমি বললাম সরি স্যার একটু দেখলেই আমি পারব। . কিছুটা হতাশ মন নিয়ে বোর্ড থেকে বের হলাম, কিন্তু আশা রাখলাম মনে, যখন নিয়োগ পত্র পেলাম ততদিনে আমি জেনে গেলাম আমি লিখিত পরীক্ষায় প্রথম, পরবর্তীতে জয়েন করার পর জানতে পারলাম লিখিত পরীক্ষায় আমার নম্বর ৮২.৫% । আমি সত্যিই আনন্দিত। স্বপ্ন-তাড়না-লক্ষ্য এ সমীকরণে এগিয়ে চলুন, আপনিও পারবেন।

Yousuf bin Ali
Deputy Director, Bangladesh Bank
MBA, IBA(DU).

Career সংক্রান্ত যেকোন (ফ্রি) গাইডলাইন এর জন্য যোগাযোগ করুনঃ
#Epitomebd
The Ace Building, House-08, Road-01(Beside Well Park)
O R Nizam Road, GEC, Chittagong
Website: www.epitomebd.com
Email: info@epitomebd.com
Phone: 01677-842422

ফেসবুক পেজঃ https://www.facebook.com/epitome55/

http://culive24.com/wp-content/uploads/2018/03/বাংলাদেশ-ব্যাংকের-এডি-প্রস্তুতি-by-Yousuf-Bin-Ali-DDBangladesh-Bank-MBA-IBADU..jpghttp://culive24.com/wp-content/uploads/2018/03/বাংলাদেশ-ব্যাংকের-এডি-প্রস্তুতি-by-Yousuf-Bin-Ali-DDBangladesh-Bank-MBA-IBADU.-150x150.jpgculiveUncategorizedBangladesh Bank,DD,MBA-IBA(DU),বাংলাদেশ ব্যাংকের এডি প্রস্তুতি by Yousuf Bin Aliবাংলাদেশ ব্যাংকের এডি প্রস্তুতি by Yousuf Bin Ali, DD,Bangladesh Bank, MBA-IBA(DU). জীবনের প্রথম আবেদন-ভাবলাম যদি এডমিট কার্ড পাই পরীক্ষা দিব, সদ্য বিবিএ পাশ করা আমি তখনও জানতাম না বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রশ্নের ধরণ কেমন, একটা বই কিনলাম `Key To Bank Job’ বিগত বছরের প্রশ্নগুলো দেখার জন্য-সত্যি কথা বলতে কি মনের মধ্যে...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University