মাস্টার্স পাস করা বেকার ছেলে পারিবারিক অনুষ্ঠান এড়িয়ে চলে । কাজিনের বিয়েতে যায় না । যে কোন গেট টুগেদার এড়িয়ে চলে । কারন ওই একটাই । “”কি করো “” জিজ্ঞেস করলে জবাব দেয়ার মতো উত্তর নাই ।

বন্ধুদের মধ্যে থেকেও আইডেন্টেটি ক্রাইসিসে ভোগা মানুষটা সব থেকে অসামাজিক মানুষের মতো আচরন করে ।

পৃথিবীর সব থেকে দুঃখের ব্যাপার হচ্ছে সমপর্যায়ের কাউকে এগিয়ে যেতে দেখা এবং একই লেভেলে থেকে নিজেকে পিছিয়ে পড়তে দেখা ।

কলেজ লাইফে সবাই একসাথে ।
ইন্টার পাশ করে ভার্সিটিতে ভর্তি পরীক্ষার পর শুরু হয় নতুন পরিচয় । কলেজ থেকে যারা ভার্সিটিতে আসতে পারে নাই অথবা একই লেভেলে যেতে পারে নাই তাঁদের সাথে আর যোগাযোগ হয় না ।

৫ বছরের ক্যাম্পাস লাইফ আড্ডা , বারবিকিউ পার্টি , আর মজা মাস্তি করে শেষ । সার্টিফিকেট নিয়ে বের হলেই সবার পরিচয় আলাদা । বিসিএস ক্যাডার প্রাইভেট জব করা বন্ধুটাকে পাত্তা দিতে চায় না । প্রাইভেট জব করা বন্ধুটা বানী দেয় , ও তো সাধারন জ্ঞান মুখস্ত করে ক্যাডার হইসে ।

গল্প চলতে থাকে ।
ক্যাম্পাসের সব থেকে উচ্ছল মেয়েটাও এক সময় ঠান্ডা মেরে যায় । এখন তার বিয়ের বয়স । গায়ে উঠেছে হিজাব । আগের ফেসবুক আইডি চেঞ্জ । নিজেকে নতুনভাবে উপস্থাপনের চেষ্টা । দুনিয়ার সব থেকে নারীবাদী মেয়েটাও নিজেকে গৃহিণী প্রমান করার চেষ্টা করে ।

জীবন অদ্ভুত !!
ঘন্টার পর ঘণ্টা চায়ের দোকানে গিটার বাজানো ছেলেটাও এখন পড়ার টেবিলে সময় দেয় । গিটারের গল্প শেষ ।

প্রীতিলতা হলের সামনে সুযোগের অপেক্ষায় থাকা রোমিওটি বদলে গেছে এখন । তাকে আর দেখা যায় না হলের সামনে । বেচারা ইন্টারভিউ নিয়ে ব্যাস্ত !!

সারা বছর টাকার অভাবে দোকান থেকে ইনিয়ে বিনিয়ে বাকি খাওয়া মানুষটা এখন আমূল বদলে গেছে । দেখে আর চেনার উপায় নেই ,এই সেই হতচ্ছাড়া । সুটেড বুটেড পোষাকে ফেসবুকে পিক দেয় সে ।

বেলাবোসের নাম্বারে এখন আর কেউ কল দেয় না । যারা কল দিতো তারা এক এক করে সরে গেছে । ফোনের ওপাশের মানুষটা খুঁজে নিয়েছে অন্য কাউকে ।

সবগুলো গল্পের ভিড়ে সবাইকে ছেড়ে ফুরে উঠে আসে নতুন কোন চরিত্র । যার কথা কেউ কখনো ভাবেনি ,। যাকে কেউ গোনায় ধরে নি ।

দিন শেষে আমাদের সবার গল্পটাই তাই দুটো প্রশ্নকে ঘিরে আবর্তিত হয় । একটা হচ্ছে “”তুমি কে “” । অন্যটা হচ্ছে “‘তুমি কি করো “”

বিলিভ মি … এই দুইটা প্রশ্নের উত্তর যে যতো ভালোভাবে দিতে পেরেছে , জীবন তাকেই সব থেকে বড় জায়গাটা দিয়েছে । এই দুইটা প্রশ্নের উত্তর তৈরি করতে যা যা করা দরকার সেটা করুন । যেভাবে করা দরকার সেভাবেই করুন । নো ম্যাটার আপনি কোথা থেকে এসেছেন , কি করেছেন , আপনার অতীত কি !! জাস্ট কিছুই না এসব !!

just do it …
তাহলেই দেখবেন জীবন আপনাকে দু হাত ভরে সব দেবে ।

Arafat Abdullah (মধ্যরাতের অশ্বারোহী )
University Of Chittagong

https://i0.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2017/10/নিষ্ঠুরতায়-কোমলতার-ছোঁয়া.jpg?fit=450%2C252https://i1.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2017/10/নিষ্ঠুরতায়-কোমলতার-ছোঁয়া.jpg?resize=150%2C150culiveইন্টারভিউগল্পমাস্টার্স পাস করা বেকার ছেলে পারিবারিক অনুষ্ঠান এড়িয়ে চলেমাস্টার্স পাস করা বেকার ছেলে পারিবারিক অনুষ্ঠান এড়িয়ে চলে । কাজিনের বিয়েতে যায় না । যে কোন গেট টুগেদার এড়িয়ে চলে । কারন ওই একটাই । ''কি করো '' জিজ্ঞেস করলে জবাব দেয়ার মতো উত্তর নাই । বন্ধুদের মধ্যে থেকেও আইডেন্টেটি ক্রাইসিসে ভোগা মানুষটা সব থেকে অসামাজিক মানুষের মতো আচরন...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University