পাবলিক ভার্সিটির ছাত্ররদের মধ্যে পার্থক্যটা থেকে যায়।
কেউ কেউ হোটেলে বসে মাছ মাংস দিয়ে লান্স ডিনার করে আর কেউ আলু ভর্তা দিয়ে লান্স ডিনার করে।
কারও কারও মাস কেটে যায় হলে বিশ টাকা দামের বিচিত্র স্বাদের খাবার খেয়ে,আর কারও মাস কেটে যায় ক্যাফে,হোটেলে খেয়ে।
কেউ কেউ দিনে সপ্তাহে ফুড মুন্সটারে খাবারের পিক আপলোড দেয়।আর কারও ভার্সিটি জীবন শেষ হয়ে গেলেও ফুড মুন্সটারে পিক আপলোড দেওয়া হয় না।
একই বিভাগের একই ইয়ারের,কেউ চিন্তা করে মাস শেষে টিওশনের সম্মানী দিয়ে বাসা ভাড়া,নিজের খাওয়া বাদে কয়েকটা বই কিনতে পারবে কিনা আর কেউ কেউ ভাবে কেমনে দুইটা শার্ট প্যান্ট নেওয়া যাবে কিনা।
ইদের বন্ধে কেউ বাড়িতে গিয়ে বিলাসবহুল জামাকাপড় পরিধান করে আড্ডা মাস্তি করে একই সময়ে আর কেউ হলে থেকে প্রতিদিনকার পরিধেয় শার্টটি পরে ইদের অানন্দ উপভোগ করে।
কেউ হলের,ব্যাচেলর বাসার চারপোকা সমৃদ্ধ খাটে শুয়ে ডিপার্টমেন্টে ফার্স্ট হয় আর কেউ পারসোনাল রুমে এসির বাতাসে ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে সেকন্ড হয়।
কেউ পাবলিক বাসে বয়ে এসে পড়াশুনা করে আর কেউ ব্যক্তিগত গাড়িতে বয়ে পড়াশুনা করে।
কারও কারও শরীরে একটা শার্ট প্যান্ট সারাবছর আটার মত লেগে থাকে আর কারও কারও কাপড় রাখার মত জায়গা থাকে না।
কেউ কেউ ব্র্যান্ডের শার্ট প্যান্ট ছাড়া ইউজ করে না আর কেউ ৩০০,২০০ টাকা দামের ভ্যান প্লাজার শার্ট প্যান্ট ইউজ করে দিন কাটায়।

Muhammad Hamedur Rahman(মুকুটহীন সম্রাট)
University of Chittagong

culiveআদার্সইন্টারভিউপাবলিক ভার্সিটির ছাত্ররদের মধ্যে পার্থক্যটা থেকে যায়। কেউ কেউ হোটেলে বসে মাছ মাংস দিয়ে লান্স ডিনার করে আর কেউ আলু ভর্তা দিয়ে লান্স ডিনার করে। কারও কারও মাস কেটে যায় হলে বিশ টাকা দামের বিচিত্র স্বাদের খাবার খেয়ে,আর কারও মাস কেটে যায় ক্যাফে,হোটেলে খেয়ে। কেউ কেউ দিনে সপ্তাহে ফুড মুন্সটারে খাবারের পিক...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University