অনলাইন কেনাকাটা, অনলাইন ওয়ালেট বা অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে আজ আমাদের কাছে অতি পরিচিত কিছু শব্দগুচ্ছ; বর্তমান সময়ে অনেকেই মার্কেটে বা শপিংমলে গিয়ে কেনাকাটার চেয়ে ঘরে বসে ইন্টারনেট কানেকটেড কম্পিউটার বা স্মার্টফোনের মাধ্যমে একটি বা দুটি বাটন টিপে তাদের পছন্দের জিনিস কেনাকাটাতেই বেশী ঝুকছেন এবং যতই দিন যাচ্ছে, জ্যামিতিক হারে এই সংখ্যা বাড়ছে, আর এর পেছনে অনেকগুলো কারনের মধ্যে একটি হচ্ছে নগদ টাকা বহনের ঝামেলা বা ঝুকির চেয়ে এক বাটন টিপে ঘরে বসে অনলাইন পেমেণ্ট গেটওয়ে মাধ্যমে দাম পরিশোধ করা, যা কিনা সর্বোচ্চ নিরাপদ ও সর্বপ্রকার ঝুকিমুক্ত।

এই অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে হলো অনলাইনের মাধ্যমে টাকা পয়সা লেনদেনের এক বিশ্বস্ত ও সহজসাধ্য মাধ্যম যা সাধারণত বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর সাথে সাথে ইকমার্স ব্যাবসায়িক সাইটগুলো প্রদান করে থাকে অনলাইন ক্রেতাদেরকে অর্থ পরিশোধের সুবিধার্থে, আর এটা হচ্ছে অত্যান্ত দ্রুত সহজসাধ্য সর্বোচ্চ নিরাপদ যা কিনা চিরায়ত ব্যাংক চেক, মানি অর্ডারস ও ব্যাংক ট্রান্সফারের এক ইলোট্রোনিক প্রতিরুপ। এটা শুধু অনলাইন ভেণ্ডর, অনলাইন নিলাম সংস্থা বা ব্যাবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোকেই অর্থ লেনদেনের সুবিধা দেয় না বরং তৃনমূল পর্যায়ের গ্রাহকদের মাঝে লেনদেনের সুবিধা দিয়ে থাকে, এবং এর জন্য প্রচলিত ব্যাংক রেটের চেয়ে অনেক কম চার্জ করে থাকে।

অনলাইন পেমেণ্ট গেটওয়ে গুলি নিম্নলিখিত সুবিধাসমূহ প্রদান করে থাকে:
১. ক্রেতার ক্রেডিট কার্ডের তথ্যাবলীর ভিত্তিতে অনলাইনে সর্বপ্রকার লেনদেনের টাকা পরিশোধ করে।
২. খুবই কম খরচে বেশীর ভাগে ক্ষেত্রেই এক ডলারের ও কম খরচে একে অন্যের মধ্যে টাকা পয়সা লেনদেন সম্পন্ন করে থাকে।
৩. ক্রেতা/গ্রাহকের ব্যাংক একাউন্টে সরাসরি অর্থ জমা ও উইথড্রো করে।
৪. বেশীর ভাগ কোম্পানীরই নিজস্ব প্রিপেইড কার্ড আছে; তাই ক্রেতা/গ্রাহকের ব্যাংক কার্ড এমনকি ব্যাংক একাউন্ট না থাকলেও চলে

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও বহুল ব্যাবহৃত কিছু অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে নাম এখানে উল্লখ্যে করা হল:
পেপাল
একসেপ্ট: মাষ্টার কার্ড, ভিসা, ডিস্কোভার, আমেরিকান এক্সপ্রেস এবং আরো,
সাইন আপ ফি: ০
ট্রানজেকশন ফি: ১.৯%+$০.৩ থেকে ২.৯%+$০.৩ প্রতিবার।
সাপোর্টেড দেশসমূহ: ১৯০+

টুচেকআউট
একসেপ্ট: মাষ্টার কার্ড, ভিসা, ডিস্কোভার, আমেরিকান এক্সপ্রেস, ডিনার্স, জেসিবি, ডিবেট কার্ড
সাইন আপ ফি: ০
ট্রানজেকশন ফি: $০.৪৫+৫.৫% প্রতিবার।
অতিরিক্ত ফি: মাসিক –$১০.৯৯
বিশ্বব্যাপী ২০০ + দেশে এর সেবা বিস্তৃত।

গুগল ওয়ালেট (গুগল চেকআউট)
একসেপ্ট: মাষ্টার কার্ড, ভিসা, ডিস্কোভার, আমেরিকান এক্সপ্রেস,
সাইন আপ ফি: ০
ট্রানজেকশন ফি:
১.৯%+$০.৩০ থেকে ২.৯%+$০.৩০ প্রতিবারে।
শুধুমাত্র আমেরিকাতে র্বতমানে এর সেবা বিস্তৃত।

অথরাইজ.নেট
একসেপ্ট: মাষ্টার কার্ড, ভিসা, ডিস্কোভার, আমেরিকান এক্সপ্রেস, ডিনার্স ক্লাব, জেসিবি,
সাইন আপ ফি: $৯৯.০০
ট্রানজেকশন ফি: $০.১০ প্রতিবারে
অতিরিক্ত ফি: মাসিক গেটওয়ে ফি: $২০* এবং ব্যাচ ফি: $২৫*
বিশ্বের ১৯০ টি দেশে এর সেবা বিস্তৃত। তবে শুধুমাত্র আমেরিকানরা এটাতে একাউন্ট ক্রিয়েট করতে পারে।

আমাজন পেমেন্ট
একসেপ্ট: মাষ্টার কার্ড, ভিসা, ডিস্কোভার, আমরেকিান এক্সপ্রেস, ডিনার্স ক্লাব, জেসিবি,
সাইন আপ ফি: ০
ট্রানজেকশন ফি:- ১.৯%+$০.৩ থেকে ৫%+০.০৫ প্রতিবারে
বিশ্বের ২৮ টি দেশে এর সেবা বিস্তৃত।

ওর্য়াল্ডপে
এক্সসেপ্ট: ভিসা, ক্রেডিট এবং ডেবিট, মাষ্টার কার্ড, আমেরিকান এক্সপ্রেস, জেসিবি, ডিনার্স, লেসার, ইএলভি, পেপাল।
সাইন আপ ফি: € ৭৫
ট্রানজেকশন ফি: ১.৯% হতে +১০ পেন্স।
অতিরিক্ত মাসিক ১৫ ইউরো।
বিশ্বব্যাপী ৩৬ টি দেশে এর সেবা বিস্তৃত।

স্ক্রিল (মানিবৃকার্স)
এক্সসেপ্ট: ক্রেডিট কার্ড (ভিসা, মাষ্টার কার্ড, আমেরিকান এক্সপ্রেস, জেসিবি ডিনার্স ক্লাব), ডিবেট কার্ড (ম্যাস্ট্রো, ভিসা ইলকেট্রোন)
সাইন আপ ফি: ০
ট্রানজেকশন ফি: ১.৯%+€০.২৫ থেকে ২.৯%+€০.২৫ প্রতিবার(ইউরোপীয়ান ব্যাবসায়ীদের জন্য তবে অন্য অঞ্চলের জন্য পরিবর্তিত হবে)
বিশ্বের ২০০ টি দেশে এর সেবা বিস্তৃত।

পেয়জা
এক্সসেপ্ট: মাষ্টার কার্ড, ভিসা, ডিস্কোভার, আমেরিকান এক্সপ্রেস, ডিনার্স, জেসিবি, ডিবেট কার্ড (সহ ভিসা, মাষ্টার কার্ড, পেপাল)
সাইন আপ ফি: ০
ট্রানজেকশন ফি: ২.৫০% +$০.২৫ প্রতিবারে।
বিশ্বের ১৯০ দেশে এর সেবা বিস্তৃত।

কুইক পে
এ্ক্সসেপ্ট: মাষ্টার কার্ড, ভিসা, ম্যাষ্ট্রো, ডিস্কোভার, আমেরিকান এক্সপ্রেস, ডিনার্স, জেসিবি
সাইন আপ ফি: ০
ট্রানজেকশন ফি: €০.০১৫-€০.০৬৭ প্রতিবারে
অতিরিক্ত ফি: মাসিক নির্ধারিত: €২৫
ইউরোপের সবগুলো দেশে এর সেবা বিস্তুত।

এর বাইরে বিশ্বব্যাপী ও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ব্যাবহৃত আরো কিছু অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে হচ্ছে:

সিকিউর পে.কম: এটি ব্যাবসা শুরু করে ১৯৯৭ ইং সনের আগষ্ট মাস থেকে, এটি অনলাইন শপিং র্কাট, ইলেকট্রোনিক চেক সার্ভিস (সিকিউর পে) সাথে মোবাইলে পেমেন্ট সার্ভিস দিয়ে থাকে। ক্রেডিট কার্ড পেমেন্টের জন্য প্রথমে একজন ব্যবহারকারী হিসেবে এতে রেজিষ্ট্রি করতে হবে। এটি প্রতি লেনদেন বাবদ ২.৫%-১%+$০.২৫ র্চাজ করে থাকে।

র্ফাষ্ট ডাটা করপোরেশন: বিশ্বের সবচেয়ে পুরনো পেমেন্ট গেটওয়ে যা কিনা র্সবপ্রথম প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৬৯ ইং সনে কিন্তু ইউএসএ ও বৈশ্বিক বাজারে র্কাযক্রম শুরু করে ১৯৯৮ ইং সন থেকে। এটি ক্রেডিট কার্ড, ডেবিট কার্ড, গিফট কার্ড সহ অন্যান্য কার্ডের পেমেন্ট সার্ভিস অফার করে থাকে। বিশ্বব্যাপী প্রায় ৬ মিলিয়ন মার্চেন্ট এই পেমেন্ট গেটওয়ে ব্যবহার করে থাকে।

ব্লু পে প্রসেসিং এলএলসি: যদিও এটি অপেক্ষাকৃত নতুন র্কাযক্রম শুরু করে ২০০২ ইং সনে কিন্তু এই সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে এর স্বচ্ছ সহজবোধ্য ও বিশ্বস্ত কার্য্যক্রমের জন্য বিশ্বব্যাপী মাচের্ন্টদের নিকট সমীহ আদায় করতে সর্মথ হযেছে। ব্লু পে ক্রেডিট কার্ড ও ই-চেকের মাধ্যমে পেমেন্ট একসেপ্ট করে থাকে সর্বোচ্চ পয্যায়ের নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দেয়। এটির মাসিক নির্দিষ্ট ফি ১৫ $

পে সিম্পল: এটি ক্রেডিট কার্ড ও ই-চেকের মাধ্যমে পেমেন্ট গ্রহন করে থাকে এবং আইফোন আইপডের মাধ্যমে এটি কাজ করে থাকে। এটিকে নতুন যুগের যথোচিত পেমেন্ট গেটওয়ে হিসাবে ডাকা হয়। এটির কয়েক রকমের সাবস্ক্রিপশন প্যাকেজ আছে যার মধ্যে বেসিক প্ল্যানের মুল্য হচ্ছে মাসিক $৩৪.৯৫। বিশেজ্ঞদের মতামত অনুযায়ী ছোট ও মধ্যম আকারের অনলাইন ষ্টোরের জন্য এটি সবচেয়ে উপযোগী পেমেন্ট গেটওয়ে পদ্ধতি।

ফাষ্টর্চাজ.কম: -এটি হচ্ছে আরেক সুবিধাবহূল যুগোপযোগী পেমেন্ট গেটওয়ে বিশেষত যাদের নতুন ব্যাবসা এবং সীমিত মূলধন তাদের জন্য এটি একটি মোক্ষম সহায়ক, কারন এটিতে কোন সেটাপ ফি নেই, এক ঘন্টারও কম সময়ের মধ্যে সেটাপ করা যায়, সর্বোপরি এর শুধুমাত্র নির্দিষ্ট মাসিক ফি $১০, এর বাইরে আর কোন ফি নেই।

পেনোভা: এটি একটি সুইডিশ কোম্পানী যা কিনা এর অনলাইন ব্যাবসায়ীদেরকে ২১ টি প্রকারের পেমেন্ট সুবিধাদি দিয়ে থাকে। এটি সাধারনত ছোটো আকারের অনলাইন ব্যাবসার জন্য সবচেয়ে উপযোগী।

ক্রোনোপে: ব্যাবসায়ীদের জন্য এটি একটি আর্দশ অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে হতে পারে, যা কিনা ব্যাংক কার্ড (ভিসা কার্ড, আমেরিকান এক্সপ্রেস, জেসিবি ইত্যাদি)। যদিও রেজিষ্ট্রেশন ও সেটাপ বাবদ কোন ফি দিতে হয় না, তবে মাসিক লেনদেনের উপর একটি কমিশন প্রদান করতে হয়।

বাংলাদেশে এখনও পর্যন্ত যে সব অনলাইন পেমেন্ট ওয়ালেট/গেটওয়ে সবিশেষ পরিচিতি লাভ করেছে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে:

Moneybookers Skrill : সাধারণত সবাই স্ক্রিল বলেই চিনে ও ডাকে, এটি বিশ্বের ২০০ শত দেশ থেকে পেমেন্ট প্রসেস করতে পারে, তবে সাধারণত কম পরিচিত ও ন্যুনতম প্রচলতি মুদ্রার লেনদেনের জন্য এটি সবচেয়ে ভালো মাধ্যম। এটি ২০০১ ইং সনের ২৭ শে জুলাইয়ে র্সবপ্রথম বৃটেনে যাত্রা শুরু করে। র্বতমানে বিশ্বব্যাপী এর ২৫ মিলিয়ন গ্রাহক আছে, যার মধ্যে ১২০০০০ মার্চেণ্ট একাউন্ট ফেসবুক, স্কাইপি ইবে এর মতো প্রতিষ্ঠানের সাথে সংশ্লিষ্ট।
https://www.skrill.com/en/

Alertpay Payza : ২০১২ ইং সন থেকে এটি শুধু পেয়জা নামে আত্মপ্রকাশ করে, এর মাধ্যমে খুবই স্বল্পতম সময়ের মধ্যে বিশ্বের যে কারো কাছে পেমেন্ট পাঠানো ও রিসিভ করা যায়। ব্যাংক একাউন্ট ও ক্রেডিট র্কাডের মাধ্যমে পেমেন্ট রিসিভ ও উইথড্রোর পাশাপাশি এটি বিট কয়েনও একসেপ্ট করে থাকে।
https://www.payza.com/

Payoneer MasterCard : এটি সাধারণত পেঅনার কার্ড নামেই পরিচিত, বিশ্বের ২০০ টি দেশে প্রায় ১৫০ টি মুদ্রায় এটি তার সেবা প্রদান করে থাকে এবং বাংলাদেশেও এটি বহুল জনপ্রিয় বিশেষ করে ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে এর মাধ্যমে পেমেন্ট রিসিভ করতে এর ভালো কোন বিকল্প নেই।
https://www.payoneer.com/

ভাল লাগা থেকে লিখা, টিউনটি পড়ে আপনারা উপকৃত হলেই লেখার সার্থকতা পাবে।

ডেল কার্নেগীর একটি কথা দিয়ে শেষ করছি –
“অনুকরন নয়, অনুসরন নয়, নিজেকে খুঁজুন,নিজেকে জানুন, নিজের পথে চলুন।”

ধন্যবাদ
– সোহেল রানা,সানশাইন

https://i1.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2017/07/mthumb-1.jpg?fit=275%2C150https://i2.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2017/07/mthumb-1.jpg?resize=150%2C150culiveআইটিgateway,paymentঅনলাইন কেনাকাটা, অনলাইন ওয়ালেট বা অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে আজ আমাদের কাছে অতি পরিচিত কিছু শব্দগুচ্ছ; বর্তমান সময়ে অনেকেই মার্কেটে বা শপিংমলে গিয়ে কেনাকাটার চেয়ে ঘরে বসে ইন্টারনেট কানেকটেড কম্পিউটার বা স্মার্টফোনের মাধ্যমে একটি বা দুটি বাটন টিপে তাদের পছন্দের জিনিস কেনাকাটাতেই বেশী ঝুকছেন এবং যতই দিন যাচ্ছে, জ্যামিতিক হারে...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University