আমরা প্রায় কোনো কাজে উৎসাহ বাড়ার জন্য বিভিন্ন মোটিভেশনাল লিখা গুলো পড়ি,বিভিন্ন মোটিভেশনমূলক মুভি দেখি, বিভিন্ন জীবনী পড়ি ইত্যাদি, ইত্যাদি। কিন্তু আক্ষরিক অর্থে যেটা দেখা যায় ;ঐ সব মোটিভেশনাল কথা শুনে, মোটিভেশন মুভি ক্ষনিকের জন্য আনন্দ পাওয়া যায় ও তখন ইচ্ছে করে আমি আজ হেনতেন অনেক কিছু করে ফেলবো। সবচেয়ে বড় কথা হলো মটিভেশনাল স্পিচ অথবা মুভি দেখে সামান্য মাত্র কিছু শিক্ষা নেয়া ছাড়া আর কিছুই হয় না।
কেউ কেউ মুভির বিশাল এক লিস্ট বানিয়ে ফেলে ইন্সপায়ার হওয়ার জন্য। সে একটার পর একটা মুভি ডাউনলোড করে আর নতুন করে প্রত্যেকদিন অনুপ্রাণিত হয়। দেখা গেলো সে ঐ লিস্ট করা মুভির মধ্যে কোনো একটা মুভি পেলোনা, সে ঐটা পাওয়ার জন্য অনেকভাবে চেষ্টা করে আর না পাইলে ডিপ্রশনে ভুগে। ইন্সপিরেশন নিতে গিয়ে উল্টো ডিপ্রশনে পড়ে। এগুলাই বাস্তব বর্তমানে।
কিছু কিছু মানুষ বই পড়ে অনুপ্রেরণা পায়,তারা বিভিন্ন বই পড়ে।সে একটার পর একটা বই পড়তে থাকে কিন্তু দেখা যায় সেই যে উদ্দেশ্য নিয়ে বই পড়া শুরু করছে সেই উদ্দেশ্যে থেকে ছুটে গিয়ে মারাত্মক ধরনের বইপোকাতে পরিণত হয়েছে।তার জীবনের উদ্দেশ্যই হয়ে দাড়িয়েছে একটার পর একটা বই পড়া।কিন্তু কি উদ্দেশ্য নিয়ে বই পড়া শুরু করেছে ঐটায় ভুলে বসে।
আরো কিছু কিছু ব্যাক্তি দেখা যায় বড় বড় মানুষকে ধরে বলে ভাই আমি খুব হতাশায় আছি আমারে একটু বুদ্ধি দেন, হেনতেন আরো অনেক কিছু।সবচেয়ে বড় কথা হলো, নিজের বুদ্ধিতে না জাগলে কেউ কখনো জেগে উঠতে পারেনা।
মুভি, বই এগুলো ক্ষনিকের শিক্ষা দেয়।একজন মানুষ ভালো ভালো রাস্তা দেখিয়ে দেয় কিন্তু ঐ রাস্তায় কিন্তু চলতে হবে নিজেকে।কথায় আছে “আমরা যদি না জাগি মা কেমনে সকাল হবে”
জীবনে চলার জন্য অনুপ্রাণিত হওয়া অবশ্যই দরকার আছে , অনুপ্রাণিত হবারো অনেক উপায় আছে, কৃত্রিমতাকে অনুসরণ না করে বাস্তবতাকে অনুসরণ করুন।
রেইললাইনের পাশের বস্তিগুলোতে ঘুড়ে আসুন, কিভাবে একমুটো ভাত পেটে চালান করে দেখে আসুন। ওদের কেউ কেউ বিভিন্ন অসৎ কাজ করে হলেও যোগাড় করে খাবার। কারণ তারা জানে পেটে যখন ক্ষিধা থাকে তখন সৎ অসৎ বিবেচনা করা যায় না, খাবার যোগাড় করাই একমাত্র কারণ হয়ে দাড়ায়। একজনের ফেলে দেওয়া এঁটো ভাত আর চিবিয়ে খাওয়া হাড্ডিরটুকরা ওরা কি সাচ্ছন্দ্যে খায় ওগুলো দেখলে অনুপ্রেরনা আপনাআপনিই চলে আসে।
হয়তো রাস্তাঘাটে অনেক ভিক্ষুক আছে যাদের পা ভালো থাকা সত্ত্বেও পা একটারে সারাদিন খোড়ার মতো করে ভিক্ষা করে। হ্যাঁ এটা আমার আপনার চোখে বাটপারি হলেও এটা তার জীবন চলার মাধ্যম। জীবনের প্রতি টান আছে বিধায় সে সারাদিন এভাবে একপা খোড়া করে রাখে। অনুপ্রেরণা এরাই।
জীবনে অনেকে অনেক ভাবে চলতে চায়।কেউ একমুটো ভাত পেলে খুঁশি, আর কেউ বা একথালা। যে যেভাবেই খুঁশি থাকতে চায় ঐভাবেই খুঁশি থাকা ভালো। সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত দুনিয়ার সবচেয়ে সুন্দর জিনিস হলো মুখের হাসি। এটা ধরে রাখার জন্যই এত সংগ্রাম।
তাই হাসুন, অন্যকে হাসতে দিন, জীবনকে ভালোবাসুন।
© বাসু দাশ রিক্ত

culiveইন্টারভিউউদ্দীপনাপরীক্ষা ও ফলাফলঅনুপ্রেরনাআমরা প্রায় কোনো কাজে উৎসাহ বাড়ার জন্য বিভিন্ন মোটিভেশনাল লিখা গুলো পড়ি,বিভিন্ন মোটিভেশনমূলক মুভি দেখি, বিভিন্ন জীবনী পড়ি ইত্যাদি, ইত্যাদি। কিন্তু আক্ষরিক অর্থে যেটা দেখা যায় ;ঐ সব মোটিভেশনাল কথা শুনে, মোটিভেশন মুভি ক্ষনিকের জন্য আনন্দ পাওয়া যায় ও তখন ইচ্ছে করে আমি আজ হেনতেন অনেক কিছু করে ফেলবো।...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University