বছর পাঁচেক পূর্বেকার কথা।। এডমিশন টেস্ট দিচ্ছি।। ঢা.বি. তেও দিতে গেলাম।। জহুরুল হক হলে ছিলাম।। এক বিকেলে ঘুরতে বেরিয়ে শাহবাগ থেকে টিএসসি’র দিকে আসছি।। তো সেখানে সেদিন,, রাজু ভাস্কর্যের পাশে প্যান্ডেল টানিয়ে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হচ্ছিলো।। শুনলাম এক কবি নানারকম অশ্রাব্য গালাগাল মিশিয়ে মনের সবটুকু আবেগ দিয়ে একটি কবিতা আবৃত্তি করে চলেছেন।। বিষয়,, যথারীতি পাকিস্তান।। গালিগালাজ দিয়ে যে কবিতা আবৃত্তি করা যায় সেদিন প্রথম বুঝলাম!!!
“একটুখানি বিজ্ঞান” নামে বাংলাদেশের চেতনা বিজ্ঞানী জাফর ইকবালের একটি বই আছে।।। বইটির ১১১ পৃষ্ঠায় স্ট্রিং থিওরি’র বর্ণনা করতে যেয়ে চেতনা বিজ্ঞানী জাফর ইকবাল পৃথিবীর অনেক বিজ্ঞানীর অনেক অবদানের কথাই বলেছেন বটে তবে ভুলেও একটিবারের জন্যেও পাকিস্তানী বিজ্ঞানী আব্দুস সালামের অবদান উল্লেখ করার প্রয়োজন মনে করেননি।। অথচ ভৌত বিজ্ঞানের ছাত্র মাত্রই জেনে থাকবে যে,, স্ট্রিং থিওরিতে স্পষ্ট করে বলতে গেলে দুইটি বলের একীভবনের ক্ষেত্রে আব্দুস সালামের আবিষ্কার কতটা গুরুত্বপূর্ণ!!! তাহলে কেন শিক্ষা বিস্তারের ক্ষেত্রেও একজন বিজ্ঞানী’র আবিষ্কার অস্বীকার করে প্রকারান্তরে মিথ্যার আশ্রয় নেয়া হলো?? মুসলমান এবং বিশেষ করে পাকিস্তানী তাই জন্যে???
অথচ,, পৃথিবীর প্রেক্ষাপটে বিজ্ঞানের ইতিহাস অনুসন্ধান করলে আব্দুস সালাম কিংবা আব্দুল কাদির খানের নাম পাওয়া গেলেও জাফর ইকবালের মত বিজ্ঞানীর নাম খুঁজে পাওয়া দুষ্কর!!!

পাকিস্তান থেকে আমদানিকৃত বাসমতী চাল,, লেয়ার মুরগী দিয়ে উত্তমরূপে পাককৃত পোলাও বিরিয়ানি খেয়ে একটি গোষ্ঠী ধুয়ো তুললো যে দেশ থেকে পাকিস্তানি পণ্য নিষিদ্ধ করা হোক।। খুবই ভাল কথা।। কিন্তু,, নীলক্ষেত থেকে ফ্রী তে বিরিয়ানি খাওয়ার আগে এসব কথা মনে ছিল না বুঝি??!! যেসব দেশভক্ত সেদিন এই দাবী তুলেছিল,, সেই শাহবাগী নারী কর্মীরা কিন্তু এখনো ঈদের বাজারে কিংবা বিভিন্ন অকেশনে সালওয়ার কামিজের জন্য সাচ্চা পাকিস্তানী লন খুঁজে বেড়ায়!!!!! অস্বীকার করার উপায় আছে???

খেলাধুলার জন্য যেসব সরঞ্জাম আসে,, তার অধিকাংশই পাকিস্তান থেকেই আসে।। যেমন CA ব্যাট,, স্পার্টান ব্যাট,,ইহসান ব্যাট,, SA ব্যাট,, ক্রিকেট বল,, ফুটবল,, হকিস্টিক,, হ্যান্ড গ্লাভস,, প্যাড ইত্যাদি।। পাকিস্তানের ওপরে যখন এতই ঘৃণা,, তাহলে বাংলাদেশেও এই ধরনের আন্তর্জাতিক পর্যায়ের খেলার সরঞ্জাম তৈরী হোক,, তাহলে দেশী পণ্য কিনে হও ধন্য শ্লোগানটির স্বার্থকতা থাকবে।।

এবার আসা যাক,, ভারতের কথায়।। ভারত হিন্দু প্রধান দেশ এটা সবাই জানে।। তবুও রমজানের সময়ে ঐ হিন্দুরাই কিন্তু মুসলমামদের জন্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ডিসকাউন্টে বিক্রি করে।।। অথচ,, বাংলাদেশে,, মুসলমান নামধারী ব্যবসায়ীরা সবকিছুর দাম তিন থেকে চারগুণ বাড়িয়ে দেয়।।।

এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে,, ভারতীয় ক্রিকেট ঐতিহ্য বাংলাদেশের চেয়ে তো অবশ্যই প্রাচীন।।। যদিও বাংলাদেশ ক্রিকেট দল এখন ভাল করছে।। কিন্তু বছর দেড়েক আগে,, ভারত যখন বাংলাদেশের কাছে সিরিজ হেরে গেল,, তখন “প্রথম আলো” নামের একটি প্রভাবশালী পত্রিকার রম্য অংশ রস+আলো যেভাবে ট্রল বানালো এটা কি সীমালঙ্ঘন নয়??? (( ট্রলটাতে ভারতীয় ক্রিকেটারদের অর্ধেক মাথা মুড়ানোর একটি ছবি ছিল))…

স্বীকার করছি যে ভারত মওকা মওকা এড বানিয়ে বিভিন্ন জাতীকে ট্রল করে কিন্তু এতটা অশোভনভাবে নয় যেটা বাংলাদেশের প্রথম আলো করেছিল।। এরপর থেকে তো ইতিহাস!!! বাংলাদেশের তথাকথিত দেশপ্রেমিকেরা বাঁশ আদান প্রদান বিষয়ক ট্রল বানিয়েছে এবং তার ধারাবাহিকতা এখনো বজায় আছে।।
অথচ,, আলোচনা হতে পারত বিরাটের কভার ড্রাইভ কিংবা রোহিতের স্কয়ার কাট নিয়ে।। অথবা,, বিরাট যে মাশরাফির পিঠ চাপড়ে দিল সেসব নিয়ে!!! এ কথা ত অস্বীকার করার উপায় নেই যে,, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে ভাল খেলেই ভারত জিতেছে।।

ভারতীয় সিনেমায় হতে পারে খোলামেলা দৃশ্যাবলী থাকে কিংবা হতে পারে ওদের সিরিয়ালগুলোতে কিছুটা অবাস্তব ঘটনাবলী দেখানো হয়।। কিন্তু আমি মনে করি এবং এটাই সত্যি যে,,, ভারতীয় আর্টিস্টদের অভিনয় কিংবা নাচ অথবা গানের মধ্যে যে পরিমাণ আর্ট আছে,, বাংলাদেশী আর্টিস্টদের মধ্যে সেটা নেই।।। বস্তুত,, ওদের কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার আছে।।

…….
উপরের লেখায় যদি কেউ পাকিস্তানপ্রেম কিংবা ভারতপ্রীতি আবিষ্কার করতে পারে তাহলে তাকে তার স্থূল বুদ্ধির জন্য অগ্রীম অভিনন্দন।। আর কেউ যদি,, লেখার বক্তব্যটা সত্যিই বুঝতে পারে তবে তাকেও তার বিচক্ষণতার জন্য অভিনন্দন!!!
পরিশেষে বলতে চাই,, মানুষের ভাল কাজের প্রশংসা করুন।। খারাপ টা এভয়েড করুন।।

আশিক ফয়সাল সজীব

পদার্থবিদ্যা বিভাগ
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

https://i0.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2017/06/secular.jpg?fit=365%2C253https://i2.wp.com/culive24.com/wp-content/uploads/2017/06/secular.jpg?resize=150%2C150culiveইভেন্টক্যাম্পাসবছর পাঁচেক পূর্বেকার কথা।। এডমিশন টেস্ট দিচ্ছি।। ঢা.বি. তেও দিতে গেলাম।। জহুরুল হক হলে ছিলাম।। এক বিকেলে ঘুরতে বেরিয়ে শাহবাগ থেকে টিএসসি'র দিকে আসছি।। তো সেখানে সেদিন,, রাজু ভাস্কর্যের পাশে প্যান্ডেল টানিয়ে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হচ্ছিলো।। শুনলাম এক কবি নানারকম অশ্রাব্য গালাগাল মিশিয়ে মনের সবটুকু আবেগ দিয়ে একটি কবিতা...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University