CU বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘর
শিক্ষাঙ্গন : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

মাস দুয়েক আগের কথা বলছি, দেশের একটি নামি কোম্পানির কাছে গিয়েছিলাম এক শুভাকাঙ্ক্ষীর সঙ্গে একটা প্রোগ্রামের স্পন্সরশীপের ব্যাপারে কথা বলতে। ওই কোম্পানির মার্কেটিং কর্মকর্তা বললেন, আপনাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে কাজ না করার একটা নীতিগত সিদ্ধান্ত রয়েছে। তবে দেখি কী করা যায়!

হ্যা, তখন খুব লজ্জায় পড়েছিলাম। একদিন কোন কোম্পানির কর্মচারিদের হলে নিয়ে আটকে রেখে সব হাতিয়ে নেওয়া, আরেকদিন অন্ধকারে নিয়ে ট্রাক ড্রাইভারের মোবাইল হাতিয়ে নেওয়া হয়। এসব শুনতে শুনতে বিরক্ত হয়ে গেছি।

নেশাখোররা বসে থাকে কখন কাকে খ্যাপ মারা যায়। আর তাদের জন্যই নাম খারাপ হয়। মোবাইল টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানিগুলো বড় প্রজেক্ট নিয়ে ক্যাম্পাসে আসতে চায় না ছিনতাইকারীর ভয়ে। এইতো গত ভর্তি পরীক্ষার সময়ের কথা, এক ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীকে অন্ধকারে নিয়ে সব হাতিয়ে নিতে চেয়েছিল এক নেশাখোর। পরে ওই ছেলে চিৎকার করায় মাত্র ৪০০ টাকা দিয়ে কেনা তার একটা শার্ট নিয়ে পালিয়ে যায় ওই নেশাখোর।

শিক্ষার্থীকে হলে আটকে রেখে চাঁদা দাবির ঘটনাতো ঘটছেই। ভাইবা দিতে আসা শিক্ষার্থীকে তুলে নিয়ে চাঁদা দাবি করা, আতঙ্গে ফেলার ঘটনাও ঘটেছে। এক প্রকার ধান্ধাবাজদের আখড়া খানায় পরিণত হয়েছে সবুজ ক্যাম্পাস। বাহির থেকে কেউ আসতে পারে না। আসলেই সর্বস্ব হাতিয়ে দেওয়া হয়।

কারো কাছে এসব বলতে পারি না। বললেই সবাই বলে শুধু নিউজ করে দাও। চাইলেই পারি সবগুলো ঘটনা একসাথে টেনে একটা হিট নিউজ করতে। ভালোই খাবে! কিন্তু ভাই, আমিও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। আমি বাহিরের কেউ নই। আমারও মান যাবে। বলবে তোমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে কি সব চোর নাকি! শুধু এই কারণেই নিউজ করি না।

ছাত্রসংগঠনের নেতৃবৃন্দের কাছে অনুরোধ, আপনারা নিশ্চয় আমাদের চেয়ে ভালো জানেন এমন কাজ কারা করে! তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন। না হয় রাজনীতির মারপ্যাঁচে ফেলে ক্যাম্পাস আউট করে দেন। এসব আগাছা আপনাদেরই বিক্রি করছে। তারা বলে বেড়ায় আপনারাও নাকি ভাগ পান! পান কিনা জানি না। যদি না পেয়ে থাকেন তবে ব্যবস্থা নিন।

আর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে জোর দাবি, আমাদের এই অপবাদ থেকে মুক্ত করেন। আমরা সবাই চোর, ছিনতাইকারী, নেশাখোর না। গুটি কয়েক দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিন, তাহলে সব এমনেই ঠিক হয়ে যাবে।

-জোবায়ের চৌধুরী
শিক্ষার্থী ও সংবাদ কর্মী,
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

CoxsBazar Techক্যাম্পাস সৌন্দর্যক্রাইম এন্ড "ল"anarchy of public university,cuমাস দুয়েক আগের কথা বলছি, দেশের একটি নামি কোম্পানির কাছে গিয়েছিলাম এক শুভাকাঙ্ক্ষীর সঙ্গে একটা প্রোগ্রামের স্পন্সরশীপের ব্যাপারে কথা বলতে। ওই কোম্পানির মার্কেটিং কর্মকর্তা বললেন, আপনাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে কাজ না করার একটা নীতিগত সিদ্ধান্ত রয়েছে। তবে দেখি কী করা যায়! হ্যা, তখন খুব লজ্জায় পড়েছিলাম। একদিন কোন কোম্পানির কর্মচারিদের হলে...Think + and get inspired | Priority for Success and Positive Info of Chittagong University